“আশা ”
——————————————————————–
পীযূষ কান্তি দাস
——————————————————————–
ইচ্ছেগুলো বিচ্ছু বড়ো
সকল সময় বায়না ধরে ,
মেটাতে তার বাসনা হায়
কার না বলো ইচ্ছে করে ?

কখনও সে আপন মনে
মেলতে যে চায় রঙীনডানা ।
যাবে উড়ে অচিনপুরে
শুনবে না সে কোনই মানা ॥

মনের মাঝে খুশীর ঝিলিক
প্রতিপলেই দেয় যে দোলা ।
যায় উড়ে যায় শূণ্যপানে
মন হয়ে যায় পাগলাভোলা ॥

ভাবতে ভাবতে যাই ঘুমিয়ে
স্বপ্নপরী কাছে আসে ।
মাথায় আমার হাতটি বোলায়
আদর করে ভালোবাসে ॥

হঠাত্ করে ঘুম ভেঙে যায়
দেখি আছি বিছানাতে ।
দুচোখে বয় নয়নধারা
কাঁদি তখন একলা রাতে ॥

হোকনা সবার ইচ্ছে পূরণ
দুঃখ সবার যাক্ না ঘুচে ।
ভালবাসায় ভরুক ধরা ,
সব ব্যবধান দাও গো মুছে ॥

” এই মেয়ে তুই ”
—————————————————–
পীযূষ কান্তি দাস
########################
এই মেয়ে চল্ ঘুরতে যে যাই বোস্ বাইকের পিছে ,
রাখনা তোর ওই “সবুজ সাথী “যেটা এবার দি’ছে ।
তুই হবি ওই সুচিত্রা সেন উত্তমকুমার আমি
বেশি কিছু চাইবো নারে দিস একটা ওই হামি ।
দুজন মিলে গাইবো সে গান “পথ যদি না শেষ হয় “,
সারা জীবন চললে গাড়ি বলবে রে মন বেশ হয় ।
আমি হলাম কাল্টুমাণিক তুই রূপসী ঝকাস ,
কটাক্ষ প্লীজ হানিস না রে বুকটা করে ধকাস ।
বইমেলাতে নিয়ে গিয়ে দুজন তুলে সেল্ফী ,
ফেসবুকেতে আপডেট দেবো দেখিস তখন ভেল্কি ।
কমেন্টস লাইক বন্যাতে ওই দুজন যাবো ভেসে ,
চকাস চুমু দিবিতো তুই দুই গালেতে এসে ?
ফি হপ্তায় ওই মাল্টিপ্লেক্সে নতুন নতুন ছবি ,
পূরণ করবো সবকিছু তোর আছে যত হবি ।
গঙ্গায় গিয়ে প্রমোদতরী ঘুরবো মনের সুখে ,
নিবিড় করে জাপটে নেবো তোকে আমি বুকে ।
মনের মাঝে তোরই সুবাস করলি আমায় পাগল ,
পারিনা রে রইতে একা মন মানে না আগল ।
দোহাই তোরে লক্ষ্মীসোনা একটা চুমু দে ,
তোরই পাগল মেনে আমায় বুকে টেনে নে ॥

“তুমি কী ভাবছো তার কথা ”
——————————————————————–
পীযূষ কান্তি দাস
——————————————————————–যে ছেলেটা দিলো প্রাণ তোমারই ডাকে
যে বধূ হারালো তার স্বামী ,
অন্ধের যষ্টি হারালো যে পিতা
তার কথা তুমি আজ ভাবো
নাকি সিংহাসন হলো বেশী দামী ?

উন্নয়ণ জোয়ারে ভাসছে বলো দেশ
তবুও লোকে কাজ খোঁজে কাজ ,
যে ছেলেটার স্বপ্ন ছিলো চোখে
পাস করে ছুটে ছুটে ক্লান্ত
শেষকালে ভাজে দেখি বেগুনী -চপ আজ ॥

মেলা মেলা মেলা চারিদিকে
পাইয়ে দেওয়ার রাজনীতিই চলে শুধু ,
“তোমার -আমার “ব্যবধান গেছে কী আজও ঘুচে
এত কি সহজে যায় ছাড়া
ক্ষমতার ভাণ্ড ভরা মধু ?

ছোঁয়া

” “ছোঁয়া ”
—————————————————————————————-
পীযূষ কান্তি দাস
———————————————————————————–
মনের মাঝে অনেক দিনের সাধ
তোমায় আমি একটু স্পর্শ করি ,
আলতো একটা চুমুও দিয়ে দিই
কিংবা তোমার হাতটা একটু ধরি ॥

তোমায় দেখি আমার মানসচোখে
কিংবা সে ওই মনেরই আয়নায়
নাইবা এলে সত্যি কাছে তুমি
মন তো আমার বশ মানেনা তায় ॥

চশমাপরা ডাগর দুটো আঁখি
মুক্তোঝরা একটু মুচকি হাসি ,
দেখতে পাগল আমার অবুঝ মন
তোমায় অনেক অনেক ভালোবাসি ॥

ছিলে যেমন আজও তেমনি আছো
গেছ দূরে তাতে কি আর ভয় ,
স্বপ্নে কিংবা কল্পনাতে রোজ
ছুঁইছি তোমায় বাস্তবে তো নয় ॥

 

আজ কবিতা দিবসে আমার হতাশা
“বিষণ্ণ -ভালোবাসা ”
@@@@@@@@@@@@@
পীযুষ কান্তি দাস
_______________________________
কবিতা ,
তুমি আজো আমায় ভালবাসো ?
বিপন্ন আমি ডুবতে বসেছি
কই আর কাছে আসো?
পুড়েখাঁক আজ হয়ে গেছি আমি
সাহারা হয়েছে মন ;
হতভাগা আমি তুমি হারা হয়ে
কাঁদছি যে অনুক্ষণ ॥

সেই ছোট হতে তোমাতে আমাতে
এক সাথে বেড়ে ওঠা ,
আজ মনে হয় ছিল সব ভুল
ক্ষণিকের মোহ ওটা !
কাজেরই চাপে ভুলছি তোমায়
তুমিও ছাড়লে হাত ;
অথচ শপথ ছিলো দুজনায়
রইবো যে সাথ সাথ !!

আমি একা বসে উদাস বিবাগী
কেঁদেই কাটাই রাত ,
এসো এসো প্রিয়ে এসো আজ কাছে
মাথা ‘পরে রাখো হাত ।
স্বপ্ন দেখি তোমাকেই নিয়ে
ছাড়লাম কতকিছু ,
কত অপমান কত লাঞ্ছনা
বেঁচে আছি মাথা নীচু ।
আমার জীবনে প্লাবন হয়ে
এসো এসো প্রিয়তমা ,
উপহার কিছু দিয়ে যাই লোকে
নইলে পাবো না  ক্ষমা ॥